শ্বাস কষ্ট, ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ রাখতে আম পাতার এই ব্যবহার শিখে রাখুন

ফেলনা নয়, আমের মতো এর পাতাতেও (mango leaves) আছে নানা গুণ। নানা রোগ নিরাময়ে প্রাচীনকাল থেকে আমপাতার (mango leaves) ব্যবহার

চলে আসছে। আমপাতায় (mango leaves) বিভিন্ন খনিজ উপাদান আছে। এর মধ্যে আছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। আমের মধ্যে রয়েছে অনেক উপকারি গুণ।

জানেন কি আম পাতাতেও (mango leaves) থাকে উপকারি গুণ? এতে রয়েছে ভিটামিন, এনজাইম, অ্য়ান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ উপদান। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে আমপাতা (mango leaves) ব্যবহারে কী কী রোগ নিরাময় হয়,

তার বর্ণনা দেওয়া রয়েছে। আম পাতায় মেঞ্জিফিরিন নামক একটি সক্রিয় উপদান থাকে যা স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো। এবার দেখে নেওয়া যাক আর কী কী উপকারিতা রয়েছে?

১. ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণে: কচি আমপাতা ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণে কাজে লাগে। এতে ট্যানিনস নামক অ্যান্থোসায়ানিডিন থাকে, যা প্রারম্ভিক ডায়াবিটিস নিরাময়ে খুব কার্যকরী। আমপাতা (mango leaves) শুকিয়ে গুঁড়ো রাখতে পারেন। গরম জলে সেদ্ধ করে চায়ের মতো পান করতে পারেন অথবা তাজা পাতা জলে ভিজিয়ে সারা রাত রেখে দিন। সকালে এ জল ছেঁকে নিয়ে পান করুন। ডায়াবিটিসের প্রাথমিক পর্যায়ের রোগীদের জন্য আমপাতা উপকারী। শরীরে ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে ও হাইপারগ্লাইসেমিয়া কমাতে সাহায্য করে কচি আমপাতা।

২. উচ্চ রক্তচাপ: উচ্চ রক্তচাপ কমাতে পারে আমপাতা। এ পাতায় হাইপোট্যান্সিভ উপাদান আছে, যা উচ্চ রক্তচাপ কমতে সাহায্য করে।

৩. ক্লান্তি দূর করে: উদ্বেগ বা বিষণ্নতার কারণে যাঁরা ঘুমাতে পারেন না, তাঁদের জন্য ভালো ঘরোয়া ওষুধ এটি। কয়েকটি আমপাতা চানের জলে দিয়ে রাখুন। এতে শরীর শান্ত হবে এবং শরীর সতেজ হবে।

৪. কিডনি ও গল ব্লাডারের পথ দূর করে: কিডনি ও গল ব্লাডারের পাথর দূর করতে পারে আমপাতা। এ পাতার গুঁড়ো জলে সারা রাত ভিজিয়ে রেখে খেলে পাথর দূর হয়।

৫. মুখের সমস্যা দূর করে: আমপাতা সেদ্ধ জল দিয়ে কুলকুচো করলে মুখের বিভিন্ন সমস্যায় উপকার পাওয়া যায়।

৬. শ্বাসকষ্ট দূর হয়: ঠান্ডা, হাঁপানি ও অ্যাজমায় যাঁরা ভুগছেন, তাঁদের জন্য আমপাতা উপকারী। আমপাতা ফুটিয়ে ঠান্ডা করে মধু যুক্ত করে খেলে কাশি দূর হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*